একুশে পদক বাংলাদেশের একটি জাতীয় এবং দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক পুরস্কার। বাংলাদেশের বিশিষ্ট ভাষাসৈনিক, ভাষাবিদ, সাহিত্যিক, শিল্পী, শিক্ষাবিদ, গবেষক, সাংবাদিক, অর্থনীতিবিদ, দারিদ্র্য বিমোচনে অবদানকারী, সামাজিক ব্যক্তিত্ব ও প্রতিষ্ঠানকে জাতীয় পর্যায়ে অনন্য অবদানের স্বীকৃতি প্রদানের উদ্দেশ্যে ১৯৭৬ সাল থেকে একুশে পদক প্রদান করা হচ্ছে।  

একুশে পদক ২০২২’ প্রদানের জন্য ২৪ জন বিশিষ্ট ব্যক্তির নাম ঘোষণা করে। এ বছর ভাষা আন্দোলন বিভাগে ২ জন, মুক্তিযুদ্ধে ৪ জন, শিল্পকলা (শিল্প, সংগীত ও নৃত্য) বিভাগে ৭ জন , সমাজসেবা বিভাগে ২ জন, ভাষা ও সাহিত্যে ২ জন, গবে ষণায় ৪ জন, সাংবাদিকতায় ১ জন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে ১ জন এবং শিক্ষায় ১ জন পুরস্কার পেয়েছেন।

ভাষা আন্দোলনের ক্ষেত্রে মোস্তফা এম এ মতিন (মরণোত্তর) ও মির্জা তোফাজ্জল হোসেন মুকুল (মরণোত্তর) পুরস্কার পেয়েছেন।

মুক্তিযুদ্ধ বিভাগে পেয়েছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. মতিউর রহমান, রাষ্ট্রদূত সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী (মরণোত্তর), কিউ এ বি এম রহমান ও আমজাদ আলী খন্দকার।

নৃত্যে পেয়েছেন জিনাত বরকতুল্লাহ।

সংগীতে নজরুল ইসলাম (মরণোত্তর), ইকবাল আহমেদ ও মাহমুদুর রহমান।

অভিনয়ে খালেদ মাহমুদ খান (মরণোত্তর), আফজাল হোসেন ও মাসুম আজিজ।

সাংবাদিকতায় পেয়েছেন এম এ মালেক।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে পেয়েছেন মো. আনোয়ার হোসেন।

শিক্ষায় পেয়েছেন অধ্যাপক গৌতম বুদ্ধ দাস। 

সমাজসেবা বিভাগে পেয়েছেন এস এম আব্রাহাম লিংকন ও সংঘরাজ ডা. জ্ঞানশ্রী মহাথেরো।

ভাষা ও সাহিত্য বিভাগে পুরস্কার পেয়েছেন কবি কামাল চৌধুরী ও ঝর্ণা দাস পুরকায়স্থ।

গবে ষণা বিভাগে পেয়েছেন ইমেরিটাস অধ্যাপক মো. আবদুস সাত্তার মণ্ডল, ডা. মো. এনামুল হক (টিম লিডার), ডা. শাহানাজ সুলতানা (টিম) ও ডা. জান্নাতুল ফেরদৌস (টিম)।

 

একুশ পদক ২০২০

নাম ক্ষেত্র

১. আমিনুল ইসলাম বাদশা (মরণোত্তর) ভাষা আন্দোলন

২. ডালিয়া নওশিন শিল্পকলায় (সংগীত)

৩. শঙ্কর রায় শিল্পকলায় (সংগীত)

৪. মিতা হক শিল্পকলায় (সংগীত)

৫. গোলাম মোস্তফা খান শিল্পকলায় (নৃত্য)

৬. এস এম মহসীন শিল্পকলায় (অভিনয়)

৭. ফরিদা জামান শিল্পকলায় (চারুকলা)

৮. হাজী আক্তার সরদার (মরণোত্তর) মুক্তিযুদ্ধ

৯. আবদুল জব্বার (মরণোত্তর) মুক্তিযুদ্ধ

১০. আ আ ম মেসবাহুল হক মুক্তিযুদ্ধ

১১. জাফর ওয়াজেদ সাংবাদিকতা

১২. জাহাঙ্গীর আলম খান গবেষণা

১৩. সৈয়দ মোহাম্মদ ছাইফুর রহমান নিজামী শাহ গবেষণা

১৪. বিকিরণ প্রসাদ বড়ুয়া শিক্ষা

১৫. শামসুল আলম অর্থনীতি

১৬. সুফি মিজানুর রহমান সমাজসেবা

১৭. নুরুন নবী ভাষা ও সাহিত্যে

১৮. সিকদার আমিনুল হক (মরণোত্তর) ভাষা ও সাহিত্যে

১৯. নাজমুন নেসা পিয়ারি ভাষা ও সাহিত্যে

২০. সায়েবা আখতার চিকিৎসা

২১. বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট গবেষণা

 ২০১৫ সালে পদকপ্রাপ্তরা হলেন-

  •  ভাষা আন্দোলনে -- প্রয়াত পিয়ারু সর্দার (মরণোত্তর),

  •  মুক্তিযুদ্ধে --  অধ্যাপক মো. মজিবর রহমান দেবদাস,
  •  ভাষা ও সাহিত্যে -- অধ্যাপক দ্বিজেন শর্মা ও মুহম্মদ নুরুল হুদা, 

  • শিল্পকলায় -- প্রয়াত আব্দুর রহমান বয়াতি (মরণোত্তর), এস এ আবুল হায়াত‍‍ এবং এ টি এম শামসুজ্জামান,
  •  শিক্ষায়  -- অধ্যাপক ডা. এম এ মান্নান ও সনৎ কুমার সাহা,

  • গবেষণায় -- আবুল কালাম মোহাম্মদ যাকারিয়া,

  • সাংবাদিকতায় -- কামাল লোহানী,
  • গণমাধ্যম শাখায়--  ফরিদুর রেজা সাগর,

  • সমাজসেবায়  -- ঝর্না ধারা চৌধুরী, শ্রীমৎ সত্যপ্রিয় মহাথের ও অধ্যাপক ড. অরূপরতন চৌধুরী।

 সম্মাননাস্বরূপ প্রত্যেককে নগদ এক লাখ টাকা, ৩৫ গ্রাম ওজনের একটি স্বর্ণপদক ও একটি সম্মাননাপত্র দেওয়া হয়।